20/07/2019 , ঢাকা

জাতির উদ্দেশে সিইসির ভাষণ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়


প্রকাশিত: 20/07/2019 05:13:30| আপডেট:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিস্তারিত সময়সূচি জানাতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। সন্ধ্যা ৭টায় তার ওই ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারে একযোগে সম্প্রচার করা হবে বলে নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন।

বুধবার তিনি বলেন, জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার তফসিল ঘোষণা করবেন। তার আগে বেলা ১১টায় কমিশন সভা বসবে।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিটিভির মহাপরিচালক এম হারুনুর রশিদ বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে সিইসির ভাষণ রেকর্ড করার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা আমরা পেয়েছি। সন্ধ্যা ৭টায় ভাষণ সম্প্রচারের প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে।

সকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের সঙ্গে বৈঠকে সিইসি বলেন, আপনারা জানেন, আমরা এর আগেও সংসদ নির্বাচন নিয়ে ঐক্যফ্রন্ট ও যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বৈঠক করেছি। আমাদের সকল প্রস্তুতি রয়েছে। আশা করি, কাল তফসিল ঘোষণা করা হবে ।

এরশাদের জাতীয় জোট, এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর যুক্তফ্রন্ট এবং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ইসির পরিকল্পনা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার তফসিল ঘোষণায় পক্ষে বলে এলেও বিএনপিকে নিয়ে গঠিত কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্ট সমঝোতার আগে তফসিল ঘোষণা না করার দাবি জানিয়ে আসছে। বৃহস্পতিবার তফসিল ঘোষণা করা হলে কমিশন অভিমুখে পদযাত্রার কর্মসূচিও দিয়ে রেখেছেন ঐক্যফ্রন্টের সবচেয়ে বড় দল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সংবিধান অনুযায়ী ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতার কথা তুলে ধরে গত মঙ্গলবার সিইসি বলেছিলেন, এর বাইরে তারা যেতে পারব না। তিনি বলেন, সব রাজনৈতিক দল চাইলে কমিশন হয়ত সংবিধান নির্ধারিত সময়ের মধ্যে থেকে ভোটের সময়সূচি কয়েকদিন পেছানোর কথা ভাবতে পারে, কিন্তু নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই।

নির্বাচন কমিশন বেশ কিছুদিন আগে থেকেই ডিসেম্বরের দ্বিতীয়ার্ধে ভোটের সম্ভাব্য তারিখ ধরে তাদের প্রস্তুতি এগিয়ে নিচ্ছিল। প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিজেও মঙ্গলবার ওই সময়ের কথাই বলেন। তার যুক্তি, দুই দফা বিশ্ব ইজতেমার কারণে ১৫ থেকে ২৬ জানুয়ারি নির্বাচন করা সম্ভব না। ইজতেমার কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে পুরো জানুয়ারি মাসই ব্যস্ত থাকতে হয়।

এর আগে জানুয়ারির ১ তারিখ থেকে স্কুল খোলা থাকে। ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালনের জন্য কমিশনকে স্কুল শিক্ষকদের ওপেই অনেকখানি নির্ভর করতে হয়। ফলে তখন ভোট করতে গেছে স্কুলের পাঠ্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটবে।

আবার জানুয়ারিতে শীত ও কুয়াশা বেশি থাকে এবং চরাঞ্চলে নদীপথে যাতায়াত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে বলে ডিসেম্বরের মধ্যেই নির্বাচন করার পক্ষে মত দেন সিইসি। সাধারণত তফসিল ঘোষণা থেকে ভোট পর্যন্ত ৪০-৪৫ দিন সময় লাগে। সর্বশেষ দশম সংসদ নির্বাচনে ৪২ দিন সময় রেখে ভোটের তফসিল হয়েছিল।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিলে ৪৫ দিন সময়কে ‘স্ট্যান্ডার্ড’ মেনে ভোটের সময়সূচি ঘোষণা করা হবে বলে গত ৪ নভেম্বর ইংগিত দিয়েছিলেন নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত হোসেন চৌধুরী। তার ওই ইংগিত ঠিক থাকলে ভোট হতে পারে ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে। তবে মনোনয়নপত্র দাখিল, বাছাই, প্রত্যাহার ও ভোটের তারিখ তফসিলের সঙ্গেই ঘোষণা করা হবে।

** নির্ভরযোগ্য খবর জানতে ও পেতে স্টার মেইলের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখুন: Star Mail/Facebook


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

‘বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক এখন বিশ্বের জন্য অনুসরণীয়’

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক বিশ্ব আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ইতিহাসে অনন্য। প্রতিবেশী এ দুটি দে

দীর্ঘদিনের গোপন ট্যাটু প্রকাশ্যে আনলেন সামান্থা

নতুন সিনেমা ‘ওহ বেবি’ ভালো ব্যবসা করছে। সেই সাফল্যে হাওয়ায় ভাসছেন ভারতের দক্ষিণী সুন্দরী সামান্থা আক্কিনেনি। এবার নিজের দীর্ঘদিনের

বিচার বিভাগের স্বাধীনতা কেতাবি কথা: রুমিন ফারহানা

সরকারের নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগ পৃথক করা কেতাবি কথা ছাড়া আর কিছুই নয়, বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা।

মন্তব্য লিখুন...

Top