20/06/2019 , ঢাকা

ঢাকায় চলন্ত বাসে তরুণীকে গণধর্ষণ করলো পাঁচজন!


প্রকাশিত: 20/06/2019 19:56:28| আপডেট:

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকায় এক তরুণীকে চলন্ত বাসে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে বাসের চালক ও সহকারীসহ মোট ৭ জনকে আটক করেছে ধামরাই থানা পুলিশ। রবিবার রাত ১২টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ের কচমচ এলাকা থেকে চলন্ত বাস থামিয়ে ওই নারী পোশাক শ্রমিককে উদ্ধারসহ অভিযুক্তদের আটক করা হয়।

ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মলয় সাহা স্টারমেইল টােয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, কারখানায় কাজ শেষে ঢাকার ধামরাইয়ের ইসলামপুর থেকে রবিবার রাতে ‘যাত্রীসেবা’ নামের একটি লোকাল বাসে ওঠেন ওই তরুণী। তিনি একজন পোশাক শ্রমিক। বাসটি ধামরাইয়ের কালামপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পৌঁছালে ৫ জন যাত্রী ব্যাতীত সবাই নেমে যায়। এরপর বাসের হেলপার বাসের দরজা বন্ধ করে দেয় এবং চালক বাসটি মহাসড়কে উদ্দেশ্যবিহীন ভাবে চালাতে শুরু করে। এসময় চালকসহ ৫ জনের ধর্ষণের শিকার হন ওই নারী। এসময় ওই নারীর ডাক ও চিৎকারে একটি পেট্রোল পাম্পের কর্মীরা বিষয়টি বুঝতে পেরে ধামরাই থানা পুলিশকে খবর দেন।

সংবাদ পাওয়ার পর পুলিশের চারটি পৃথক দল বাসটি ধাওয়া করে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের কচমচ এলাকা থেকে আটক করে ও ভুক্তভোগী নারীসহ যাত্রীবেশী চালকের সহযোগী ওই ৫ জনসহ মোট ৭ জনকে আটক করে।

মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলাটি করেছে। মেয়েটি এখন পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। আটকদের রিমান্ড আবেদন করে দুপুরে আদালতে পাঠানো করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রিয়াজউল হক স্টারমেইল টােয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, লোকাল একটা বাসে একজন তৈরি পোশাক শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এই বাসের কোন নাম নেই, এটা লোকাল বাস এবং শ্রমিকরা এতে যাওয়া-আসার কাজ করে।

তিনি বলেন, ওই বাসে বাসের চালক, হেলপার এবং তাদের সাথে আরো তিনজন ছিল। তারা ধর্ষণ করে ওই গার্মেন্ট শ্রমিককে।

দেশে এর আগেও চলন্ত বাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গত বছরের অগাস্টে টাঙ্গাইলের মধুপুরে চলন্ত বাসের মধ্যে এক তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে জঙ্গলে লাশ ফেলে দেয়। ওই ঘটনায় দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

পুলিশ বলছে, টাঙ্গাইলের মধুপুরে এক তরুণীর মৃতদেহ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছিল। তার আত্মীয়-স্বজন ছবি দেখে লাশ সনাক্ত করার পর তরুণীটিকে বাসের মধ্যে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ ও হত্যার এই ঘটনা ফাঁস হয়।

সেই ঘটনার ছয় মাসের মধ্যে বিচার কাজ সম্পন্ন হয় যেটা বাংলাদেশে বিরল। ওই ঘটনায় পাঁচ আসামির মধ্যে ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড আর একজনের সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়ে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে আদালত। এ টাকা এবং যে বাসে ঘটনাটি ঘটেছে সে বাসটি আদালতের আয়ত্তে নিয়ে রূপার পরিবারকে দেয়ার নির্দেশও দেন আদালত।

আরো পড়ুন : গুজব ছড়াচ্ছেন ইমরান এইচ সরকার, অভিযোগ প্রধানমন্ত্রীর!

আরো পড়ুন : ইমরান এইচ সরকারকে তালাক দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রীর মেয়ে!


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

চার তরুণীকে দীর্ঘদিন আটকে রেখে গণধর্ষণ

একটি বাসায় দীর্ঘ ছয়মাস ধরে চার তরুণীকে বিভিন্ন স্থান থেকে এনে আটকে রেখে আসামি নিজে ও তার সহযোগীদের সাথে জোরপূর্বক যৌন সম্পর্ক করতে বাধ্য করা হয়।

ঘটনার বিস্তারিত জানিয়েছি, কেন তদন্ত করা হয়নি: সোহেল তাজ

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজ বুধবার সন্ধ্যায় ফেসবুক লাইভে এসে বলেছেন, আমরা সৌরভকে ফিরে পেতে চাই জীবিত এবং অক্ষত অবস্থায়। সেটাই আমাদের দাবি। আ

অজি বধের টোটকা বাতলে দিলেন মাশরাফি

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয়ের পর বিশ্বকাপ সেমি ফাইনালের পথ অনেকটাই মসৃণ করেছে লাল সবুজের দল। বৃহস্পতিবার ট্রেন্ট ব্রিজে অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারলে সে পথ হয়ে উ

মন্তব্য লিখুন...

Top