13/11/2018 , ঢাকা

পুলিশ সদস্যের কবিতাগ্রন্থ ‘কাব্যধারায় বঙ্গবন্ধু’


প্রকাশিত:10:41 pm | November 7, 2018 | আপডেট:

কয়েক বছর পূর্বে একটি মন্তব্য বহুল প্রচার পেয়েছিল যে, ‘মাছের রাজা ইলিশ, আর চাকরির রাজা পুলিশ’। বলাবাহুল্য পুলিশের ক্ষমতার দাপট বুঝাতে এটি উল্লেখ হলেও মূলত’ তা ছিল ব্যাঙ্গোক্তি। তবে বাস্তবতা হচ্ছে, বাংলাদেশের অন্য কর্মজীবীদের তুলনায় পুলিশের চাকরি ব্যতিক্রমী। এ চাকরিতে নেই কোনো নির্ধারিত কর্মঘণ্টা। ঝড়-বৃষ্টির মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ, কিংবা বৈরী পরিবেশ- সব কিছু উপেক্ষা করেই দায়িত্ব পালন করে যেতে হয়। কখনও কখনও অবসর বা বিশ্রামের ফুসরতও পাওয়া যায় না। দায়িত্ব পালনের এমন কঠোর বিধানের মধ্যেও কেউ কেউ লেখালেখি অথবা অন্য কোনো সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকছেন। এদের একজন হলেন আবু বকর মোল্লা। তিনি বর্তমানে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পল্টন মডেল থানায় কর্মরত।

বিরল প্রতিভার অধিকারী আবু বকর মোল্লা চাকরির পাশাপাশি একজন কবি, ছড়াকার, গল্পকার, উপন্যাসিক, নাট্যকার, মঞ্চ অভিনেতা ও নাট্য নির্দেশক। সুহৃদদের কাছে তার পরিচয় কবি, কথা সাহিত্যিক ও বঙ্গবন্ধু গবেষক হিসেবে। তার প্রকাশিত উপন্যাস ‘সিঁড়িঘর’ ও ‘তিমির রাত্রি’। ছোট গল্পের মধ্যে রয়েছে: ‘সেই তুমি এলে’; ‘অভিমানী যুথিকা’; ‘জেরীন আজও মনে পড়ে তোমাকে’; ‘কলেজ চত্বর’ ও ‘অপেক্ষা’। কাব্যগ্রন্থ ‘গণজাগরণ মঞ্চ থেকে বলছি’। নির্দেশিত নাটক ‘গতিময় জীবন’।

রচিত নাটক ‘সেই তুমি এলে’ ও ‘শেষ চিঠি’। ‘অবশেষে তুমি’ এবং ‘চৈতির বিয়ে’ নামক আরো দু’টি উপন্যাস প্রকাশের পথে। কর্মের জন্য এরই মধ্যে তিনি বেশ কয়েকটি পুরস্কার লাভ করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে: জীন হেনরী ডুনান্ট স্মৃতি পদক-২০১৫, আট-ই-ফাল্গুন পদক-২০১৫, অমর একুশে স্মৃতি পদক-২০১৫, জাতীয় শিশু দিবস সম্মাননা পদক-২০১৫, মুক্ত তথ্য সম্মাননা পদক-২০১৬ এবং শের-ই-বাংলা একে ফজলুল হক স্মৃতি পদক-২০১৬।

তবে আবু বকর মোল্লার এক অসাধারণ সৃষ্টি ‘কাব্যধারায় বঙ্গবন্ধু’। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী নিয়ে এটি একটি কবিতা গ্রন্থ। গ্রন্থটিতে রয়েছে ২৪ হাজার ৩২০ পংক্তির একটি মাত্র কবিতা। যা বিশ্বের সর্ববৃহৎ কবিতা বলেই সংশ্লিষ্টদের দাবি। গ্রন্থটিতে কবিতা ছাড়াও বঙ্গবন্ধুর দুর্লভ কয়েকটি স্থিরচিত্র রয়েছে। চলতি বছর একুশের বই মেলায় এটি প্রকাশ হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেছিলেন। মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়াসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন অনেক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। বইটির প্রকাশনায় রয়েছে ‘মানবাধিকার প্রকাশন’। বইটি উৎসর্গ করা হয়েছে জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্বাধীনতাকামী বাঙালি জাতিকে। বইটি অভিজাত বিভিন্ন লাইব্রেরি এমনকি অনলাইন পরিবেশকের মাধ্যমে পাওয়া যাচ্ছে। ৯১২ পুষ্ঠার বইটির মূল্য ধরা হয়েছে ২,২৫০ টাকা।

বইটিতে ভূমিকা, কৃতজ্ঞতা এবং লেখকের কথা শিরোনামে তিন পর্বে লেখক মনবাতিহাস এবং আমাদের মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিসহ স্বাধীনতা সংগ্রামে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনবদ্য ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।

লেখক বলেছেন, দীর্ঘ ১০ বছর বঙ্গবন্ধুকে জানার বা বুঝার চেষ্টা করেছি। যে মানুষটির জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না, যে মানুষটির জন্ম না হলে আমরা একটি পতাকা পেতাম না- সে মানুষটিকে নিয়ে গবেষণা করতে পেরে আমি গর্বিত। আমি বঙ্গবন্ধুর জীবনী অবলম্বনে ২৪ হাজার ৩২০ পংক্তি বিশিষ্ট বিশ্বের সর্ববৃহৎ একটি কবিতা রচনা করেছি। যা বাংলাদেশের জাতীয় কবিতার স্বীকৃতি এবং গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডে স্থান লাভ করলে বাঙালি জাতির হাতে গোণা কয়েকটি অর্জনের মধ্যে এটি একটি হবে বলে আমার বিশ্বাস।

এটিকে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডে স্থান পাইয়ে দিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ও ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন।

** নির্ভরযোগ্য খবর জানতে ও পেতে স্টার মেইলের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখুন: Star Mail/Facebook


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

যশোরে ৩ কনস্টেবলকে গণপিটুনি

মঈনুল হক আরও জানান, আইনশৃঙ্খলার বিঘ্ন ঘটাতে কোনো চক্র পরিকল্পিতভাবে এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে কিনা পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে।

পুলিশ পিটিয়ে আটক হলেন এসআই

পরে প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে স্বজনদের খবর দিলে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতে শাওনকে ঢাকায়

পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল ছোড়েন মৃত মোজাম্মেল!

মোজাম্মেলের পরিবারের সদস্যদের প্রয়োজনে মৃত্যু সনদ ও জমিসংক্রান্ত বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ওয়ারেশ-কাম সনদ দেওয়া হয়েছে।