25/05/2019 , ঢাকা

সমালোচনার প্রতিবাদ জানালেন শাজাহান খান


প্রকাশিত: 25/05/2019 13:52:35| আপডেট:

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধে গঠন করা কমিটির সভাপতি হওয়ায় যে সমালোচনা হচ্ছে তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি। সোমবার জাতীয় সংসদে দেওয়া বক্তব্যে প্রতিবাদ জানান তিনি। এদিন সংসদে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামের মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সাবেক এ মন্ত্রী। সোমবার ব্যক্তিগত কৈফিয়ত (২৭৪ বিধিতে) দিতে গিয়ে ফখরুল ইমামের মন্তব্যকে দুঃখজনক আখ্যায়িত করে তা এক্সপাঞ্জের দাবি করেন তিনি। একইসঙ্গে ফখরুল ইমামকে ওই বক্তব্য প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবি জানান শাজাহান খান।

এর আগে সংসদের প্রশ্নোত্তরে সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানকে প্রধান করে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ কমিটি গঠনের প্রসঙ্গে টেনে জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমাম সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে জানতে চান—‘বদিকে (কক্সবাজারের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদি) দিয়ে মাদক নিয়ন্ত্রণ আর শাহজাহান খানকে দিয়ে সড়ক কন্ট্রোল কতটা সম্ভব?’ এ সময় তিনি বলেন, ‘গরু-ছাগল চিনলে লাইসেন্স দেওয়া যাবে শাজাহান খানের এই মন্তব্যে সারাদেশ তোলপাড় হয়েছিল। উনার এক হাসি ওই সময় দেশে কী পরিস্থিতি তৈরি করেছিল তা সবাই জানেন। তাকে দিয়ে সরকারের কমিটমেন্ট কতখানি রক্ষা হবে?’

ফখরুল ইমামের ওই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তার ব্যাখ্যা দেন। তিনি বলেন, ‘অভিজ্ঞ মানুষ হিসেবে শাহজাহান খানের নাম সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ কমিটির প্রধান হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছে। তাকে এই কমিটির প্রধান করার সময় উপস্থিত কারও কোনও বিরোধিতা আসেনি। এখানে তার কোন স্মিত হাসির জন্য কী সমস্যা উদ্ভূত হয়েছে সেটা দেখবো না। এখানে ব্যক্তি বিষয় নয়। দেখা হবে তারা সড়কে শৃঙ্খলা আনয়নে সবাই মিলে কী সুপরিশ তৈরি করেন, পেশ করেন। তার ভিত্তিতে পরবর্তী কার্যক্রম নেওয়া হবে। আর এখানে যতটা না আশা করা হচ্ছে তার থেকে ভালো রিপোর্টও তো আসতে পারে।’

এই প্রশ্নোত্তর পর্বের শেষে শাহাজান খান ২৭৪ বিধিতে ফ্লোর নিয়ে তার সম্পর্কে করা ফখরুল ইমামের মন্তব্যের জবাব দেন।

শাজাহান খান বলেন, সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম মাদক ব্যবসা ও দুর্ঘটনাকে এক কাতারে দাঁড় করিয়ে আমার সম্পর্কে একটি মন্তব্য করেছেন। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। আমি এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাই।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘২০০৯ সালে অধ্যাপক মোজাফ্ফর আহমেদ আমার সম্পর্কে মন্তব্য করেছিলেন ‘যার হাতে সড়ক পরিবহন জিম্মি তাকে দেওয়া হয়েছে নৌপরিবহনের দায়িত্ব।’ সেই ঘটনার ৪ বছর পরে এক টক শো‘তে পেয়ে তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম ‘আপনার কী সেই ভুল ভেঙেছে?’ সেদিন তিনি কথাগুলোর উত্তর দেননি। ফখরুল ইমামকেও এই সংসদে দাঁড়িয়ে বলতে হবে তার বক্তব্য ভুল, বিভ্রান্তিকর ও উদ্দেশ্যমূলক ছিল।’’

জাতীয় পার্টির সমালোচনা করে শ্রমিক নেতা শাজাহান খান বলেন, উনারা (জাতীয় পার্টির) ক্ষমতায় ছিলেন। সড়ক পরিবহন সেক্টরটি খুবই স্পর্শকাতর। এই সেক্টরে বহু আগে থেকেই বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি ছিল। তার থেকে এখন অনেক শৃঙ্খলা ফিরিয়ে এসেছে। ১৯৭২ সাল থেকে আমি এর সঙ্গে সম্পৃক্ত। আমি শ্রমিক রাজনীতি করি, ট্রেড ইউনিয়ন করি। শ্রমিকদের পক্ষে কথা বললে অনেকের গায়ে লাগতে পারে। ২০১৩/১৪ সালে গার্মেন্টগুলোতে যখন জ্বালাও-পোড়াও ও ভাঙচুর হয়েছিল তখন প্রধানমন্ত্রী আমাকে সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আমি সমস্ত শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ করে ট্রেড ইউনিয়ন ও বেতন বাড়ানোর কথা বলেছিলাম। তিনি সেই পদক্ষেপ নিয়েছেন। শ্রমিকদের আন্দোলন হতেই পারে কিন্তু সেই ২০১৩ সালের পরে একটি গার্মেন্টসও ভাঙচুর হয়নি, জ্বালাও পোড়াও হয়নি।

তিনি বলেন, দুর্ঘটনা বন্ধ হয়ে যাবে এটা বলতে চাইলে তা হবে বিভ্রান্তিমূলক ধারণা। দুনিয়ার কোনও দেশ নেই যেখানে কম-বেশি দুর্ঘটনা না ঘটে। বিশ্বব্যাংক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফ একইসঙ্গে ১৯২টি দেশের ওপর দুর্ঘটনার প্রতিবেদন করেছে। ২০১১ সালে ১৯২টি দেশের মধ্যে আমাদের অবস্থান ছিল ৯০তম এবং দুর্ঘটনার হার ছিল ১৬ দশমিক ৫। আর ২০১৪ সালে সেই রেট কমে এসেছে ১২ দশমিক ৬-এ এবং আমাদের অবস্থান ১০৯।

বেশ কয়েকটি বছরের দুর্ঘটনার প্রতিবেদন তুলে ধরে সাবেক মন্ত্রী বলেন, ২০০২ সালে দেশে ৪ হাজার ৯১৮টি দুর্ঘটনা ঘটেছিল। এতে নিহত হয় তিন হাজার ৩৯৯ জন। ২০১৫ সালে দুই হাজার ৩৯৪টি দুর্ঘটনা ঘটে। তাতে দুই হাজার ৩৭৬ জন নিহত হয়েছে।

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি ও বিএনপির শাসনামলে দেশে চালকদের জন্য ট্রেনিং ইন্সটিটিউট ছিল না। শেখ হাসিনার আমলে ১৯৭টি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট হয়েছে। আগের মতো টার্মিনাল দখল, মানুষ হত্যার অবস্থা এখন নেই।

বর্তমান সরকারের নানামুখী পদক্ষেপে দুর্ঘটনা কমে এসেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ঢাকা আরিচা মহাসড়কে ২০১২ সালে দুর্ঘটনা ছিল ৫১৪টি। ২০১৩ সালে তা কমে হয় ২১২টি। বাঁকগুলো সোজা করা এবং ফোর লেন করার জন্য এটা কমে এসেছে। সরকারের পদক্ষেপে দুর্ঘটনা কমে এসেছে। তবে আরও দুর্ঘটনা কমাতে হবে। সেই জন্য আমাদের দায়িত্বটা দেওয়া হয়েছে। একাধিক মন্ত্রীসহ শতাধিক ব্যক্তির উপস্থিতিতে আমাকে এই দায়িত্বটা দেওয়া হয়েছে। সেখানে তো কেউ বিরোধিতা করেননি।

তিনি বলেন, দুর্ঘটনার জন্য শুধু চালক দায়ী—এ কথাটি সত্য নয়। আরিচার পাটুরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় একজন সমাজকল্যাণ সচিব নিহত হয়েছিলেন। সেই দুর্ঘটনার জন্য চালক দায়ী নন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বেল্ট পরতে হবে। তারেক মাসুদ নিহতের ঘটনায় তার স্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর কাছে বলেছিলেন, যারা নিহত হয়েছিলেন তাদের কেউ বেল্ট পরেননি। তাহলে এই দায়িত্বটা কার ওপর বর্তাবে? যে গাড়িটি তারেক মাসুদকে বহন করছিলেন তিনি দীর্ঘ সময় গাড়ি চালিয়েছিলেন। সারারাত গাড়ি চালিয়েছেন—দিনের বেলায় তিনি দুর্ঘটনা ঘটিয়েছেন। এই ধরনের বহু রিপোর্ট আমার কাছে রয়েছে। এইসব রিপোর্ট পর্যালোচনা করে কিছু কার্যকর ব্যবস্থা নেবো। সেই ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে দুর্ঘটনার হার আরও কমে যাবে বলে আশাকরি। দায়-দায়িত্ব নিয়েই আমরা কথা বলছি।


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

রাহুল ও প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সোনিয়া গান্ধীর জরুরি বৈঠক

লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেস ও জোট (ইউপিএ) মাত্র ৯৩টি আসন পেয়ে রাজনৈতিক যে বিপর্যয়ের মুখোমুখি, তা কাটিয়ে উঠতে রাহুল ও প্রিয়াঙ্কার

চিত্রনায়ক দেবের দাপুটে জয়

ভারতজুড়ে নরেন্দ্র মোদির বিজেপির জয়জয়কার। আর এরমধ্যে বিজেপি প্রার্থীকে পরাজিত করে বিপুল ভোটে জয় ছিনিয়ে নিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী ও অভিনেতা দীপন অধিকারী দেব।

৯ শতাংশ সুদে ঋণ না দিলে সরকারি আমানত পাবে না ব্যাংক

যেসব ব্যাংক গ্রাহকদের ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেবে না, এমনকি যারা ইতোমধ্যে ৯ শতাংশে ঋণের সুদহার নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে, সেসব ব্যাংক আমানত হিসেবে সরকারি তহবিলের অর্থ পাবে না।

মন্তব্য লিখুন...

Top