1. admin@starmail24.com : admin :
  2. editor@starmail24.com : editor@starmail24.com :
কেক খাওয়া নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া | starmail24
শিরোনাম :
দীর্ঘস্থায়ী কোভিড সংক্রমণে তরুণদের চার মাস পরও অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্তের আশঙ্কা: গবেষণা করোনায় প্রতি ৩০ সেকেন্ডে একজন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন ইংল্যান্ডে মহামারির মধ্যেও অত্যধিক রেমিট্যান্সপ্রবাহ নিয়ে সংশয় : ড. দেবপ্রিয় নরওয়েতে ফাইজার প্রথম ডোজের টিকা নেয়ার পর ২৩ জনের মৃত্যু দেশে করোনায় বাড়লো মৃত্যু, কমলো আক্রান্ত দেশের চারটি পৌরসভায় ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মালয়েশিয়ায় ১৩ জানুয়ারি থেকে সরকারের কড়া বিধিনিষেধের মাঝেও দূতাবাসের পাসপোর্ট বিতরন দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আবারও বাড়ল ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারি অর্থ পাইয়ে দেয়ার কথা বলে চাঁদাবাজি, ২ জন গ্রেপ্তার সরকারি স্কুলগুলোতে ২০ জানুয়ারির মধ্যে ভর্তি শেষ করতে নির্দেশ




কেক খাওয়া নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

স্টার মেইল ডেস্ক:
  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২১

পাবনায় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক খাওয়া নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। সোমবার দুপুর ২টার দিকে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে কেক কাটার আয়োজন করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি প্রধান অতিথি হিসিবে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক কেটে চলে যাওয়ার পর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে কেক বিতরণ করা হয়। এসময় পেছন থেকে কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী কেক ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করলে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। হাতাহাতি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ছড়িয়ে পড়ে আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে আব্দুল হামিদ সড়কে। এ সময় পথচারী ও ছাত্রলীগ কর্মীসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। এসময় শহরে চরম আতঙ্ক ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম বলেন, কেক খাওয়া নিয়ে হালকা একটু উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছিল, তাৎক্ষনিক আমরা বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসি।

জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফিরোজ আলী বলেন, জুনিয়র নেতাকর্মীদের মধ্যে সামান্য ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল, তেমন কিছু নয়।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসিম আহমেদ জানান, কেক খাওয়া নিয়ে নিজেদের মধ্যে একটু ঝামেলার সৃষ্টি হলে তাৎক্ষনিক ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতাদের সাথে নিয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।




আরো পড়ুন