1. admin@starmail24.com : admin :
  2. editor@starmail24.com : editor@starmail24.com :
পাইকগাছায় আয়া পদে দশ লাখ টাকায় নিয়োগের অভিযোগ, ৮ জনের পরীক্ষা বর্জন | starmail24
শিরোনাম :
শেখ হাসিনার নামে পদ্মা সেতুর নামকরণের প্রস্তাবে: প্রধানমন্ত্রীর না ভারতে করোনা টিকা উৎপাদান কোম্পানি সেরাম ইনস্টিটিউটে অগ্নিকাণ্ডে ৫ জনের মৃত্যু ফেব্রুয়ারিতে সীমিত পরিসরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত দীর্ঘস্থায়ী কোভিড সংক্রমণে তরুণদের চার মাস পরও অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্তের আশঙ্কা: গবেষণা করোনায় প্রতি ৩০ সেকেন্ডে একজন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন ইংল্যান্ডে মহামারির মধ্যেও অত্যধিক রেমিট্যান্সপ্রবাহ নিয়ে সংশয় : ড. দেবপ্রিয় নরওয়েতে ফাইজার প্রথম ডোজের টিকা নেয়ার পর ২৩ জনের মৃত্যু দেশে করোনায় বাড়লো মৃত্যু, কমলো আক্রান্ত দেশের চারটি পৌরসভায় ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মালয়েশিয়ায় ১৩ জানুয়ারি থেকে সরকারের কড়া বিধিনিষেধের মাঝেও দূতাবাসের পাসপোর্ট বিতরন




পাইকগাছায় আয়া পদে দশ লাখ টাকায় নিয়োগের অভিযোগ, ৮ জনের পরীক্ষা বর্জন

বিশেষ প্রতিনিধি
  • সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১

পাইকগাছায় এক মাধ্যমিক স্কুলে আয়া পদে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরীক্ষার আগেই বিষয়টি ফাঁস হওয়ায় ১২ পরীক্ষার্থী মধ্যে ৮ জন প্রার্থী পরীক্ষা বর্জন করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সোলাদানা ইউপির দক্ষিণ কাইনমূখীর আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের আয়া পদের নিয়োগে।

জানা গেছে, গত ৪ জানুয়ারী সোমবার সকালে আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের আয়া পদে নিয়োগের জন্য পাইকগাছা সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ১২ জন নিয়োগ পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়ার কথা থাকলেও পরীক্ষা দেন মাত্র ৪ জন। বাকি ৮ জন পরীক্ষা ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে মিনাক্ষী রায় নামে একজন কে নিয়োগ চুড়ান্ত হওয়ার কথা জানতে পেরে নিয়োগ পরীক্ষা বর্জন করে।

নিয়োগ পরীক্ষা বর্জনকারী ৮ জন সকলের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক হরেন্দ্র নাথ রায় সভাপতি ব্রজেন্দ্র নাথকে ম্যানেজ করে ১০ লক্ষ টাকার বিনিময়ে মিনাক্ষী রায় কে নিয়োগ দিয়েছেন। তার মধ্যো নিয়োগ পরীক্ষার্থী সতী রানী বলেন, প্রধান শিক্ষক হরেন্দ্র নাথ রায় আমার সাথে নয় লক্ষ টাকায় নিয়োগ চুড়ান্ত হয় কিন্তু তিনি একই স্কুলের মনোষা মান্টারের বৌমা অনার্স পড়ুয়া মিনাক্ষী কে দশ লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিয়োগ চুড়ান্ত হওয়ার কথা জানতে পেরে আমরা নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করে বর্জন করি।

কাকুলী রানী মন্ডল নামে আরো একজন নিয়োগ পরীক্ষার্থী বলেন, প্রধান শিক্ষক আয়া পদে নিয়োগের জন্য তার কাছেও দশ লক্ষ টাকা দাবী করে কিন্তু তিনি সাত লক্ষ টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি আরো বলেন, আমরা জনি মোট ১০ জন প্রার্থী নিয়োগ পরীক্ষা দিবে। কিন্তু আমরা যখন জানতে পারলাম যে মিনাক্ষী নামে একজনকে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে চাকরি চুড়ান্ত হয়েছে তখন আমরা ৮ জন পরীক্ষার্থী নিয়োগ পরীক্ষা বর্জনের সিদ্ধান্ত নেই। পরীক্ষা বর্জনের খবর জানতে পেরে প্রধান শিক্ষক নতুন করে ব্যাক ডেটে দুজনের নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেন। ফলে মোট ৪ জন পরীক্ষার্থী নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন।

প্রধান শিক্ষক হরেন্দ্র নাথ রায় আয়া পদে নিয়োগের ব্যাপারে বলেন, আয়া পদে নিয়োগ পরীক্ষায় ৪ জন অংশগ্রহণ করলেও বাকিরা আসেনি। কোন টাকার বিনিময়ে আয়া পদে নিয়োগ দেয়া হয়নি।

স্কুলের সভাপতি ব্রজেন্দ্র নাথ বলেন, নিয়োগ পরীক্ষায় কোন টাকা পয়সার লেনদেন হয়নি।




আরো পড়ুন