1. admin@starmail24.com : admin :
  2. editor@starmail24.com : editor@starmail24.com :
‘পুরোনো পাপীরা আবারও অস্থিরতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে’ - starmail24
শিরোনাম :
মালয়েশিয়ার ক্যাম্পে থাকা বাংলাদেশীদের দ্রুত দেশে প্রেরণে ক্যাম্প কমান্ডারকে অনুরোধ বাংলাদেশ হাইকমিশনারের বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়ার মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রাজারবাগ পী‌রের প‌ক্ষে প্রধানমন্ত্রীর হস্ত‌ক্ষেপ কামনা মালয়েশিয়ায় বিএনপি কর্তৃক বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা ও বিদেশে চিকিৎসা পাঠানোর জন্য দোয়া মাহফিল দেশে দ্বিতীয় ডোজের আওতায় সাড়ে তিন কোটির বেশি মানুষ সাংবাদিক গোলাম ময়নুল আহসানের পিতার ইন্তেকালে ডিআরইউ’র শোক প্রকাশ ‘জামায়াতের রাজনীতির কারণেই আলেমরা বিতর্কিত হয়েছে’ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা উলামা পীর মাশায়েখ ঐক্য পরিষদের মালয়েশিয়ার পেনাং রাজ্যের শিল্পমালিকগণ বাংলাদেশ থেকে প্র্রকৌশলী নিয়োগে আগ্রহী সাংবাদিক আতিকের বাবার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুলের শোক




‘পুরোনো পাপীরা আবারও অস্থিরতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে’

স্টার মেইল, ঢাকা
  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১

সরকার ও দেশবাসীকে বিপদে ফেলে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি করতে পুরোনো পাপীরা আবারও তৎপরতা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসাইন।

তিনি বলেন, দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ‍বিনষ্টের অপতৎপরতার এ চরম পরিস্থিতিতে আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, সরকার ও দেশবাসীকে বিপদে ফেলে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি করতে পুরোনো পাপীরা আবারও তৎপরতা চালাচ্ছে। আমরা বিভিন্ন সূত্রে খবর পেয়েছি, দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দায়ে জেলে থাকা কিছু অপরাধী সেখান থেকে বিভিন্ন বার্তা ও নির্দেশনা দিয়ে পরিস্থিতি আরও বিশৃঙ্খল করার চেষ্টা করছে। আমরা এ বিষয়টিতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা ও ভারসাম্যপূর্ণ সমাজ গঠনে আলেমদের ভূমিকা শীর্ষক’ গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন তিনি।

মাওলানা ইসমাইল হোসাইন বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় এখনই বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। দেশে বর্তমানে যে ঘোলাটে পরিস্থিতি বিরাজ করছে তা বিরোধীদলীয় অপশক্তির চক্রান্ত বলে আমরা মনে করি।

এ সময় জামায়াত, বিএনপি ও ছাত্রদলের কর্মীদের দিয়ে মন্দিরে কুরআন রাখা হয়েছে বলে দাবি করেন মাওলানা মো. ইসমাইল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘একটি গোষ্ঠী দেশকে অস্থিতিশীল করার উদ্দেশ্যে ‘একেকবার একেক ধরনের পদক্ষেপ’ গ্রহণ করছে। একবার করা হলো হেফাজত নিয়ে, একবার মূর্তি ও ভাস্কর্য নিয়ে, এখন করা হচ্ছে কুরআন অবমাননা নিয়ে; কোরআনকে আল্লাহতায়ালা অধিক সম্মান দিয়েছেন, সেই কুরআন জামায়াত-বিএনপির লোকজন শিবির-ছাত্রদলের ছেলেদের দিয়ে সেই মন্দিরে রেখে এসে তার অবমাননা করেছে।’

গোলটেবিল বৈঠকে থেকে সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন বাধ্যতামূলক করার পাশাপাশি সংবিধান অনুযায়ী ধর্ম এবং ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত হানলে দল-মত নির্বিশেষে তাকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়।

ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির অন্য দাবিগুলো হচ্ছে

১. সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন বাধ্যতামূলক করতে হবে।

২. অনতিবিলম্বে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারী ও এর সঙ্গে জড়িত বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মী এবং এদের দোসরদের গ্রেপ্তারের আওতায় আনতে হবে।

৩. কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যেকোনো পক্ষের, যেকোনো প্রকার প্রতিক্রিয়া বন্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশ দিতে হবে।

৪. ফেসবুক এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিএনপি-জামায়াত চক্র যে গুজব ছড়াচ্ছে, তাদের প্রত্যেককে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় এনে যথাযোগ্য শাস্তি প্রদান করতে হবে।

৫. বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী কোনো সম্প্রদায় অপর সম্প্রদায়ের ধর্ম এবং ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত হানলে দলমত-নির্বিশেষে তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে।

৬. দেশের জনগণকে সচেতন করে তুলতে হবে। তারা যেন দেশের বাইরে থেকে করা ষড়যন্ত্রের ফাঁদে পা না দেয়।

৭. মসজিদে-মন্দিরে এবং সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে ধর্মীয় গুরুদের মাধ্যমে ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় রাখার গুরুত্ব, ফজিলত এবং অপর ধর্মের অনুসারীদের প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের মহাসচিব মাওলানা শাহাদাত হোসাইন আলহাজ্ব মো. শাহীন খান, কাজী মাওলানা শাহ মো. ওমর ফারুক, মাওলানা শেখ সোয়াইব, হাফেজ মাওলানা মোস্তফা চৌধুরী, মুফতি ওলিউল্লাহ পাটোয়ারী প্রমুখ।

 




আরো পড়ুন