1. admin@starmail24.com : admin :
  2. editor@starmail24.com : editor@starmail24.com :
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দুতাবাসে বঙ্গবন্ধুর ১০৩ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন - starmail24




মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দুতাবাসে বঙ্গবন্ধুর ১০৩ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

স্টার মেইল ডেস্ক:
  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০২৩

বাংলাদেশ হাই কমিশন কুয়ালালামপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় ও আনন্দ ঘন পরিবেশে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস’-২০২৩ উদযাপন করে।

মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের মান্যবর হাই কমিশনার মোঃ গোলাম সারোয়ার জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসটির কার্যক্রম শুরু করেন। এরপর, তিনি হাই কমিশনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যসহ জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির পিতা, তাঁর পরিবারের অন্যান্য শহিদ সদস্য ও শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে ও দেশ ও জাতির সমৃদ্ধির জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এরপর দিবসটির উপর মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী সমূহ পাঠ করে শুনানো হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিগণ অংশগ্রহণ করেন। পরবর্তিতে, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস’-২০ উপলক্ষ্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক নির্মিত প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

দিবসটির সফল উদযাপনে বাংলাদেশ হাই কমিশন শিশু কিশোরদের অংশগ্রহণে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে যার ফলাফল এই অনুষ্ঠানে ঘোষনা করা হয় । এছাড়াও, জাতির পিতা ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে কেক কাটা হয়। এরপর, জাতির পিতার স্মরণে তাঁকে নিয়ে লেখা কালজয়ী দেশাত্ববোধক গান “শোনো একটি মুজিবরের থেকে” এর মিউজিক ভিডিও প্রদর্শিত হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতি, হাই কমিশনার গোলাম সারোয়ার তাঁর বক্তব্যে বলেন যে, জাতির পিতা মনে প্রাণে বিশ্বাস করতেন, শিশুরাই আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তারাই ভবিষ্যতে দেশের নেতৃত্ব দিবে। শিশুরা যেন উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে পারে সে লক্ষ্যে তিনি সকল চেষ্ঠা করে গেছেন। শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ ও কল্যাণে আমাদের বর্তমানকে উৎসর্গ করে সকলে মিলে জাতির পিতার অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও সুখী-সমৃদ্ধ স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে দল-মত নির্বিশেষে সকলকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান। এছাড়াও, তিনি প্রবাসীদেরকে বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোর জন্য তাদের গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা অব্যাহত রাখার আহবান জানান। অনুষ্ঠান শেষে আগত অতিথিবৃন্দের জন্য আপ্যায়নের ব্যবস্থা করা হয়।




আরো পড়ুন